তোমরা  কত জন ফ্রেঞ্চ ফ্রাই খেতে পছন্দ কর? আচ্ছা আমি বুঝেছি,অনেকেই।কিন্তু তোমাদের মধ্যে কত জন শশা খেতে পছন্দ করে?অনেকেই হয়ত নয়। কিন্তু তোমরা কি  জানো  প্রতিদিন  শশা খাওয়ার উপকারিতা? তোমরা যারা সালাদ খেতে অপছন্দ কর ,তাদের এইটা পছন্দ করা উচিৎ যদি ফিট থাকতে চাও। এই আর্টিকেলে আমি প্রতিদিন শশা খাওয়ার বিভিন্ন উপকারিতা আলোচনা করবো। তো পড় আর জেনে নাও।

এইযে ১২টি কারণ কেন আমাদের প্রতিদিন শশা খাওয়া উচিৎ ফিট থাকার জন্য

 

তোমাকে হাইড্রেটেড থাকতে সাহায্য করবে

 

যদি তুমি প্রতিদিন পর্যাপ্ত পরিমানের পানি পান না করে থাক তাহলে এইটা অবশই তোমার জন্য। শশাতে আছে ৯০ ভাগ পানি যা তোমার মিস হয়ে যাওয়া পানির গ্লাসের ঘাটতি পূরণ করতে সাহায্য করবে।

২। তোমার কোলেস্ট্ররেল নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করবে।

কোলেস্ট্রলের মাএা বেড়ে যাওয়া অবশ্যই ভাল কিছু নয়। তাই তোমরা যা করতে পার ভাল থাকার জন্য তা হল প্রতিদিন একটা শশা খাওয়ার অভ্যাস করা। কারণ শশাতে এক ধরনের ক্যামিক্যাল আছে যা খারাপ কোলেস্ট্ররেলকে নিয়ন্ত্রণে রাখে।

৩।ডায়বেটিক এর জন্য ভাল।

ডায়বেটিক এমন একটা রোগ যা ১০ বছরের বাচ্চারও হতে পারে আবার ৫০ বছরের লোকেরও হতে পারে। শশাতে এক ধরণের হরমোন থাকে যা পেনক্রিয়াস সেল শুষে নেয় যা ইন্সুলিনের পরিমান বারাতে সাহায্য করে।

৪। কিডনির সঠিক আকৃতি ধরে রাখতে সাহায্য করে।

এটি আমাদের শরীরের উরিক এসিডের পরিমাণ কম রাখে যা কিডনিকে সুস্থ ও সুরক্ষিত রাখতে সাহায্য করে।

৫। মাংসপেশি ও গিরার ব্যথা কম করে।

মাংসপেশি ও গিরার ব্যথা সাধারণত শরীরে বিভিন্ন ধরনের ভিটামিন এবং মিনারেলের অভাবে হয়ে থাকে। শশা এইসব মিনারেল এবং  ভিটামিনের ঘাটতি পূরণ করতে সাহায্য করে।

৬। রক্তের চাপ নিয়ন্ত্রণে রাখে।

রক্তের চাপ কম বা বেশি হোক দুইটাই আমাদের শরীরের জন্য খারাপ। তাই যে সব রোগীদের দুইটা থেকে একটা আছে  তাদের শশা খাওয়া অনেক সস্তি দেয়।

৭।ওজন কমাতে সাহায্য করে।

অকে, এইটা আমার মনে রাখা দরকার। সবুজ শাক সবজি ওজন কমাতে সাহায্য করে,তাই যারা ওজন কমাতে চাও তাদের প্রতিদিন শশা খাওয়া উচিৎ।

৮। শরীর থেকে টক্সিন বের করতে সাহায্য করে।

শরীরে টক্সিন এমন একটা জিনিস যা শরীরের ভেতরে থাকার চেয়ে বাইরে বের হয়ে যাওয়া বেশি দরকার। তো প্রতিদিনের ডায়েট রুটিনে একটি শশা শরীরের বিভিন্ন আবর্জনাকে বাইরে বের করতে সাহায্য করবে।

৯। তোমাকে বাহির এবং ভেতর থেকে ঠান্ডা থাকতে সাহায্য করবে।

যত পারো শশার মতো ঠান্ডা থাক, আমরা এই কথাটা বলে থাকি কারনেই। শশাই সবজিদের মধ্যে সবচেয়ে ঠাণ্ডা যা আমাদের শরীরে স্বাভাবিক তাপমাএা ধরে রাখতে সাহায্য করে।

১০। চোখের জন্য উপকার।

শশা চোখের নিচের কালো দাগ ও চোখের নিচের ফোলা ভাব কমাতে সাহায্য করে।

১১। ক্যান্সারের ঝুকি কমায়।

প্রতিদিন শশা খাওয়ার সবচেয়ে বড় উপকারিতা এইটাই। প্রতিদিন শশা খাওয়ার অভ্যাস শুধু তোমাকে ফিটই রাখবে না, ক্যান্সারের ঝুকিও কমাবে।

১২। মুখে দুর্গন্ধ হওয়া থেকে রক্ষা করবে।

এইটাই সবচেয়ে দ্রুত মাউথফ্রেসনার যা তোমার দরকার। শশার রস মুখের ভেতর থাকা ব্যাকটেরিয়াকে ধংস করে যার থেকে মুখের দুর্গন্ধও হয় না।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here